মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ০৭:৩৪ পূর্বাহ্ন Bengali BN English EN Hindi HI
সর্বশেষ ::
সিরাজদিখানে সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে সাংবাদিক লাঞ্ছিত মুন্সীগঞ্জে বাংলা টিভির বর্ষপূর্তি উদযাপন করা হ‌য়ে‌ছে। লৌহজংয়ে প্রচারণাকে কেন্দ্র করে মুক্তি যোদ্ধাদের গাড়িতে হামলা,গাড়ি ভংচুর দুই মুক্তিযোদ্ধাসহ আহত ১১ কাপ পিরিচের উঠান বৈঠকে জনতার ঢল সিরাজদিখান রিপোর্টার্স ইউনিটির সাথে উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থীর মতবিনিময় সভা লৌহজং হাড্ডা হাড্ডি লড়াইয়ে এগিয়ে রশিদ শিকদার লৌহজংয়ে দোয়াত কলমের উঠান বৈঠক জনশ্রত সাংবাদিকের উপর হামলার প্রতিবাদে সিরাজদিখান রিপোর্টার্স ইউনিটির মানববন্ধন সাংবাদিকদের উপর সন্ত্রাসী হামলার বিচারের দাবিতে মুন্সীগঞ্জে মানববন্ধন মুন্সীগঞ্জে ভূমি অফিসার্স কল্যাণ সমিতির বার্ষিক সভা
ব্রেকিং নিউজ :
মুন্সীগঞ্জে স্যালাইনে পাওয়া গেলো ভয়াবহ ফাঙ্কাস।
/ ৭৩ পঠিত:-
আপডেট সময় :- সোমবার, ২৭ নভেম্বর, ২০২৩, ৫:৪৪ অপরাহ্ন
সুমন ইসলাম, মুন্সীগঞ্জঃ
মু্ন্সীগঞ্জে এক রোগীকে ব্যথা নাশক স্যালাইন দেওয়ার সময় ওই স্যালাইনে পাওয়া গেলো ভয়াবহ ফাঙ্কাস। আজ সোমবার (২৭ নভেম্বর) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে শহরের উত্তর ইসলামপুরে গ্রামের মোঃ জহির উদ্দিন ভূঁইয়া নামে এক ব্যবসায়ী পেটের ব্যথায় অসুস্থ হলে তার স্বজনরা মু্ন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করান।
ওই সময় হাসপাতালে কর্তব্যরত চিকিৎসক বাইরে থেকে ৫/.ডিএ opso saline limited কিনে আনতে পেশক্রিপশন করেন। রোগীর স্বজনরা জেনারেল হাসপাতালে বাইরের মাস্টার ফার্মাসী থেকে ৫০/.ডিএ opso saline limited স্যালাইন কিনে এবং ওই স্যালাইন জেনারেল হাসপাতালে একজন কতর্ব্যরত নার্স রোগীকে পুশ করেন।
এদিকে রোগীকে ব্যথা নাশক স্যালাইন পুশ দেওয়া হলে কিছুক্ষণ পর তার অবস্থা মারাত্মক অবনতি হতে দেখলে স্বজনরা নার্স ও ডাক্তারকে ডেকে আনেন।তারা এসে দেখেন স্যালাইনের ভেতর মারাত্মক ফাঙ্কাস জমে রয়েছে।পরে দ্রত স্যালাইন খুলে ফেলা হয়।
এদিকে রোগীর অবস্থা খারাপ হলে তাকে জেনারেল হাসপাতালের প্যাথলজিতে পরীক্ষা নিরীক্ষা করা হয়।পরে হাসপাতাল থেকে ওই রোগীকে ৫./DNS স্যালাইন দেওয়া হলে রোগী কিছুটা সুস্থতা বোধ করেন।
এদিকে রোগীর বড় ছেলে জনি ভূঁইয়া অভিযোগ করে বলেন, হাসপাতালে কর্তব্যরত চিকিৎসক আমাদের ৫০/.ডিএ স্যালাইন বাইরে থেকে কিনে আনতে বলেন।আমি মাস্টার ফার্মাসী থেকে ওই স্যালাইনসহ অন্য ওষুধ কিনে নেই।
পরে আমার রোগীকে ৫০/.ডিএ স্যালাইন পুশ করা হয়। কিছুক্ষণ পর আমার রোগীর অবস্থা খারাপ হয়ে যায়। আমারা টেনশনে পড়ে যাই।পরে হাসপাতালের ডাক্তার নার্স এসে ওই স্যালাইন খুলে ফেলে এবং দেখেন স্যালাইনের ভেতর মারাত্মক ফাঙ্কাস জমে রয়েছে।
অন্যদিকে মাষ্টার ফার্মেসীর কর্মচারী মোঃ জুবায়ের বলেন, আমাদের ফার্মেসীতে স্যালাইন ছিলোনা। পাশের সেতু ফার্মেসী থেকে ৫০/.ডিএ স্যালাইন কিনে তারপর ওই রোগীদেরকে দেওয়া হয়।
এদিকে ভয়াবহ ফাঙ্কাস জমে থাকা স্যালাইন কিভাবে ফার্মেসীতে রাখা হচ্ছে এবং রোগীদের দেওয়া হলো এ বিষয়ে সেতু ফার্মেসীর কর্ণধার ও মু্ন্সীগঞ্জ জেলা ফার্মেসীর সাধারণ সম্পাদক মোঃ শওকত আলী খাঁ বলেন, আমাদের ফার্মেসীতে মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ বা স্যালাইন সাধারণত থাকেনা। এটি একটি দূর্ঘটনা।
অন্যদিকে এই ঘটনার বিষয়ে মু্ন্সীগঞ্জ জেলা সিভিল সার্জন ডা: মঞ্জুরুল আলম বলেন, প্রাথমিক অবস্থায় রোগীকে বাইরে থেকে স্যালাইন দেওয়া হয়। কিন্তু ফার্মেসী থেকে এনে রোগীকে যে ব্যথা নাশক স্যালাইন পুশ করা হয়েছে তাতে মারাত্মক ক্ষতিকর ফাঙ্কাস ছিলো সেটি দেখে দেওয়া উচিত ছিলো। বিষয়টি আমি খোঁজ নিয়ে দেখছি।
##
তারিখ:২৭ – ১১- ২০২৩ খ্রী।
আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
আমাদের ফেসবুক পেইজ

Recent Comments